৳ 150.0

In Stock
  • ধরন:                            ব্যঙ্গ ও রম্যরচনা
  • প্রথম প্রকাশ :             অমর একুশে গ্রন্থমেলা  ২০১৮
  • প্রকাশনী:                    সাহিত্যদেশ
  • ভাষা:                           বাংলা

 

Order By A Call: 01733001160 Or 01733001162.

SKU: DSB1903

Description

বই:                              নিজ দায়িত্বে হাসুন

লেখক:                        ইমন চৌধুরী

ধরন:                            ব্যঙ্গ ও রম্যরচনা
প্রথম প্রকাশ :             একুশে বইমেলা ২০১৭

প্রকাশনী:                    সাহিত্যদেশ
দেশ:                            বাংলাদেশ
ভাষা:                           বাংলা

ISBN : 978-984-92235-8-0

 

বইয়ের কিছু অংশ:   নিজ দায়িত্বে হাসুন

 সূচি

লাল গোলাপ সেবা সংঘ ০৯

শান্তি সফর ১২

এনপিএল-এর নিলামে ১৫

সচেতন নিলু ভাইয়ের অচেতন কাণ্ড ১৮

কালো বিড়ালের খোঁজে ২২

পদ্মা সেতু নির্মাণ বিষয়ক একটি চিন্তাশীল উপসম্পাদকীয় ২৪

লেডি ডাক্তার ২৭

পকেটমার ও ছিনতাইকারী নির্মূল কমিটি ৩১

ককটেল প্রতিরোধ কমিটি ৩৪

নিলু ভাইয়ের অলিম্পিক ভাবনা ৩৭

বাঁকা পথে টাকা আয় এবং তার আক্কেল সেলামি ৪০

নিলু ভাইয়ের নির্বাচনী ফর্মুলা ৪৩

পুনর্জন্মে নতুন আবাসের খোঁজে ৪৬

ফেসবুকে নিলু ভাই ৪৮

নিউ খবর২৪.কম ৫১

বিবাহ বিষয়ক বিপত্তি ৫৪

এক কেজি নিলে দুই কেজি ফ্রি ৫৭

বই, ভালোবাসা এবং ব্যর্থ বিকেল ৬০

জরুরি বাল্যশিক্ষা ৬৩

একটি টাচফোনের অকালপ্রয়াণ ৬৫

যে জীবন ফেসবুকের ৬৮

নিলু ভাই যখন নির্মাতা ৭১

নিলু ভাইয়ের বিনয় শিক্ষা ৭৪

একটি আমরণ অনশন কর্মসূচি ৭৮

 

লাল গোলাপ সেবা সংঘ

নিলু ভাইয়ের মাথায় যেভাবে আইডিয়া আসে সেভাবে যদি পকেটে টাকা আসত

তবে এত দিনে তিনি বিল গেটসকেও ছাড়িয়ে যেতেন! নেহাত বেকায়দায় না

পড়লে আমি নিলু ভাইয়ের কোনো আইডিয়া বাস্তবায়ন কর্মসূচিতে থাকতে চাই

না। সুযোগ পেলেই কেটে পড়ার মতলবে থাকি। কিন্তু ‘সেরের ওপর সোয়া

সের’ বলে একটা কথা আছে। আমি যতই শিং মাছের মতো পিছলে যেতে চাই

নিলু ভাই ততই আমাকে ছাই দিয়ে পাকড়াও করেন।

পাড়ার মোড়ে তৈয়ব ভাইয়ের চায়ের দোকানে দাঁড়িয়ে আয়েশ করে কেবল লাল

চায়ে চুমুক দিয়েছি, অমনি বজ্রপাতের মতো নিলু ভাই এসে মাথার ওপর

পড়লেন।

‘কী করছিস?’

‘দেখতেই তো পাচ্ছ, লাল চা খাচ্ছি।’

‘ভালো, লাল চা শরীরের জন্য ভালো। আমার জন্য এক কাপ অর্ডার দে।’ দাঁতে

দাঁত চেপে আমি আরেক কাপের অর্ডার দিই।

‘শোন, মাথায় একটা নতুন আইডিয়া এসেছে।’

‘আইডিয়া! আবার!’ আমি চ‚ড়ান্ত হতাশ!

‘হুম, আইডিয়া। মাথা তো আর ওয়াশার পানির লাইন না যে ময়লা-আবর্জনা

আসবে। জ্ঞানী মানুষের মাথায় আইডিয়াই আসে।’

‘কী আইডিয়া এসেছে?’

‘এই তো লাইনে চলে এসেছিস। শোন, আমি ভেবে দেখলাম এই যে আমরা

সবাই কেবল নিজেকে নিয়ে স্বার্থপরের মতো বেঁচে থাকিÑ এটা ঠিক না।’

‘এ ছাড়া আর উপায় কী? তুমি তো লিজা আপাকে নিয়ে বাঁচতে চেয়েছ। কিন্তু

বিনিময়ে কী পেয়েছ! বিনিময়ে পেয়েছ অপমান। প্রকাশ্যে লিজা আপা পায়ের

স্যান্ডেল খুলে তোমাকে দেখিয়েছে। এর চেয়ে নিজেকে নিয়ে বাঁচাই ভালো।’

কৌশলে আমি নিলু ভাইকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করি।

লিজা আপুর কথা শুনতেই নিলু ভাইয়ের মুখটা কিশমিশের মতো চুপসে গেল।

উদাস হয়ে তাকালেন আকাশের দিকে। বললেন, ‘দেখ, ওটা একটা ব্যতিক্রম

ঘটনা। ব্যতিক্রম কখনো উদাহরণ হতে পারে না। ভালো কিছু করতে গেলে

পদে পদে এমন হাজারও বাধা আসবে। সফল মানুষ তাতে দমে যায় না।’

নাহ, নিলু ভাইকে কোনোভাবেই তার নতুন আইডিয়া বাস্তবায়ন থেকে সরানো

যাবে বলে মনে হচ্ছে না। আমি হতাশ গলায় বললাম, ‘এখন কী করতে চাও

তুমি?’

‘মানুষকে নিয়ে বাঁচার অর্থ মানুষের সেবা করতে হবে।’

‘কিন্তু সেটা কীভাবে করবে ভেবেছ?’

“অবশ্যই ভেবেছি। এই নিলু সবসময় ভেবেই কাজ করে। ফট করে কোনো

কিছু না ভেবে কাজে নামে না। নতুন সংগঠনের নাম রেখেছি ‘লাল গোলাপ

সেবা সংঘ’। এ সংগঠনের মাধ্যমে মানুষের ঘরে ঘরে সেবা পৌঁছে দিতে হবে।

সেবা শুরু করতে হবে পাড়া থেকেই। ধর, পাড়ার কোনো মুরব্বি বাজারের

ভারী ব্যাগ নিয়ে হেঁটে আসছেন। আমাদের লাল গোলাপ সেবা সংঘের

সদস্যদের কাজ হবে দৌড়ে গিয়ে তার ব্যাগটা নিজের হাতে নিয়ে তার বাসায়

পৌঁছে দেওয়া।”

‘বাহ! বেশ সৃষ্টিশীল ভাবনা মনে হচ্ছে।’

‘তারপর ধর পাড়ার কোনো মেয়ে বাসা থেকে বেরিয়ে রিকশার জন্য দাঁড়িয়েছে,

সে ক্ষেত্রে আমাদের কাজ হবে দৌড়ে গিয়ে তাকে রিকশা ঠিক করে দেওয়া।’

‘বাহ, এটাও পাবলিক খাবে মনে হচ্ছে।’

‘দেখ, একটা মহৎ কাজের মধ্যে খাবেটাবে এ জাতীয় নিন্মমানের শব্দ ইউজ

করবি না।’

‘সরি, ভুল হয়ে গেছে। আর করব না।’

‘গুড! তারপর ধর কারো বাসায় কাজের বুয়া চলে গেছে…!’

‘আমরা কি সে বাসায় গিয়ে রান্নাও করে দিয়ে আসব নাকি!’ বিস্ময়ে আমার

চোখ কপালে ঠেকল।

‘ধুৎ! আমি সেটা বলেছি নাকি। কথা শেষ করতে দিবি তো!’

‘ঠিক আছে, শেষ করো।’

‘আমাদের কাজ হবে তখন ওই বাসায় নতুন বুয়া খুঁজে দেওয়া।’

‘হুম, তাহলে ঠিক আছে।’

‘তারপর ধর এখন শীত চলে এসেছে। এ সময় মশার উৎপাত বেড়ে যায়।

আমরা মানুষের বাসায় বাসায় গিয়ে মশা মেরে আসলাম। বাজারে মশা মারার

ইলেকট্রিক ব্যাট বের হয়েছে।’

‘কিন্তু মশা আমরা মারব কেন? মশা মারার জন্য তো সিটি করপোরেশন আছে,

মেয়র আছেন।’

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “নিজ দায়িত্বে হাসুন – ইমন চৌধুরী”

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Conditions:

  • Cash On Delivery And Bkash/Rocket Online Payment Available. Please See Details Here.
  • DELIVERY CHARGES Inside Dhaka Metro 49 Tk, Outside Dhaka Metro 99 Tk (If Customer Choose SA Poribohon In Outside Dhaka Metro Then Cost Will Be 120 Tk). For More Info Please Click Here.
  • If You Want To Pay Cash On Delivery Outside The Dhaka Metro, You Will Have To Make Payment Advance 200 / - Taka By Bakash / Rocket.
  • In Outside Dhaka Metro Delivery, Customers May Have To Collect Their Products From The Nearby Courier Service Office.
  • Estimated Delivery Time For Inside Dhaka Metro - 1-2 Working Days And For Outside Dhaka Metro - 2-3 Working Days.
  • Product Delivery May Be Delayed Due To Any Natural Disaster Or Any Other Political Unrest.
  • Please Check Size & Color Before Placing Order.
  • Product Delivery Duration Depends On Product Availability In Stock.
  • The Actual Color Of The Physical Product May Slightly Vary Due To The Deviation Of Lighting Sources, Photography Or Your Device Display Setting.
  • Please Read The Return And Exchange Page Thoroughly Before Requesting A Return Or Exchange For Your Purchased Products.
  • For Any Other Query Please Contact Us At Our Customer Care Number Is 01733001160 Or 01733001162 (Everyday 9 Am To 11 Am) Or E-Mail Us At [email protected]

Vendor Information

  • Store Name: R E Collection
  • Vendor: R E Collection
  • Address: Dhaka
  • No ratings found yet!

Questions and answers of the customers

There are no questions yet, be the first to ask something for this product.